শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০||২৭ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন  coxbazar24news@gmail.com

প্রচ্ছদ » খেলাধূলা » আরব আমিরাত ও শ্রীলঙ্কার আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব

আরব আমিরাত ও শ্রীলঙ্কার আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব

আপডেট : ০৭ জুন, ২০২০ , সময়ঃ ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন

ছবি সংগৃহীত

স্পোর্টস ডেস্ক: 

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠেয় আগামী ১০ জুন আইসিসির বোর্ড সভায় যদি ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েই যায়, তাহলে অক্টোবর-নভেম্বরের উইন্ডোতেই ভারতের টি-২০ লিগ আইপিএল হতে পারে বলে ধারণা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সমাজের। এমনটা হলে, শোনা যাচ্ছিল, করোনাভাইরাস মহামারির বর্তমান পরিস্থিতিতে আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিতে পারে সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্রিকেট বোর্ড।

শনিবার গালফ নিউজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন জানালো সংযুক্ত আরব আমিরাত ক্রিকেট বোর্ড সত্যিই আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে (বিসিসিআই)। ‘অতীতে আমরা সফলভাবে আইপিএলের ম্যাচ আয়োজন করেছি আরব আমিরাতে। দ্বিপক্ষীয় বা বহুজাতিক অনেক টুর্নামেন্ট অতীতে সফলভাবে আয়োজনের পরীক্ষিত রেকর্ড আছে আমাদে’-ইউএই ক্রিকেট বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক মুবাশ্বির উসমানকে এভাবেই উদ্ধৃত করে লিখেছে পত্রিকাটি।

‘আমাদের অত্যাধুনিক ক্রিকেট ভেন্যু ও অবকাঠামো যেকোনও ক্রিকেট আয়োজনের জন্যই অতি কাঙ্ক্ষিত স্থান হয়ে উঠেছে’-এমনটা দাবি করে উসমানি বলেছেন, ‘ইউএই ক্রিকেট বোর্ড প্রকৃতপক্ষে ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডকেও তাদের ক্রিকেট মৌসুম সম্পন্ন করার জন্য নিজেদের ভেন্যু ব্যবহারের প্রস্তাব দিয়েছে। আমরা ইংল্যান্ড ও ভারতের সাহায্যে এগিয়ে এসেছি এবং আমাদের ভেন্যু ব্যবহারের প্রস্তাব দিয়েছি। অতীতে অনেকবার ইংল্যান্ডের ম্যাচ হয়েছে এখানে। যদি এই দুই বোর্ড আমাদের প্রস্তাবে সম্মত হয়, আমরা খুশিমনেই তাদের ম্যাচ আয়োজনের দায়িত্ব নেবো।’

এদিকে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটও ১৩তম আইপিএল আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছে ভারতকে, যদি ভারতের বোর্ড বিদেশের মাটিতে সেটি আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়।

বিত্তশালী আইপিএল এবার শুরু হওয়ার কথা ছিল গত ২৯ মার্চ থেকে। কিন্তু হঠাৎই বিশজুড়ে করোনাভাইরাস হানা দেওয়ায় সেটি স্থগিত হয়ে যায় অনির্দিষ্টকালের জন্য। সবার অনুমান, আগামী টি-২০ বিশ্বকাপ বাতিল হয়ে গেলে ওই উইন্ডো কাজে লাগিয়ে তা আয়োজন করতে পারে ভারতের ক্রিকেট বোর্ড। অস্ট্রেলিয়ায় ২০২০ টি-২০ বিশ্বকাপ হওয়ার কথা আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে। কিন্তু ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার মধ্যে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে সেটির আয়োজন কতটা ফলপ্রসূ ও অর্থবহ হবে সেটি নিয়ে উদ্বেগ আছে ক্রিকেট বিশ্বের।