রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০||২৮ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ০১:০৮ অপরাহ্ন  coxbazar24news@gmail.com

প্রচ্ছদ » কক্সবাজার সংবাদ » কক্সবাজারে বৃদ্ধা মাকে টেনে হেচঁড়ে বাড়ি থেকে বের করে দিল পাষন্ড ছেলে জামাল

কক্সবাজারে বৃদ্ধা মাকে টেনে হেচঁড়ে বাড়ি থেকে বের করে দিল পাষন্ড ছেলে জামাল

আপডেট : ০২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ , সময়ঃ ০৪:১৬ অপরাহ্ন

চিত্র- বৃদ্ধ মা


শহিদুল করিম শহিদ:: এই মা আমাদের মা। আপনার আমার এরকম এক একজন মা আছেন। ওজন করে মাপতে পারবেন না এক একজন বাবা মায়ের ভালবাসা, আদর, মমতা, এসবই আমাদের জন্য, আদরের সন্তানদের জন্য তারা বিলিয়ে দেন সারাটা জীবন। ৭৫ বছরের বৃদ্ধা মাকে টেনে হেচঁড়ে অসুস্থ অবস্থায় বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে পাষণ্ড ছেলে জামাল সওদাগর। বাড়ি থেকে বের হয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির কাছে একাধিকবার বৈঠক হলেও কোনো সমাধান হয়নি মর্মে আইনের আশ্রয় নিতে সদর থানার গোল ঘরে অবস্থানরত অসহায় মা। থানার গোল ঘরে কেঁদে কেঁদে এমন কথা জানাচ্ছিলেন সাকেনা খাতুন (৭৫) নামে ওই মা। তিনি কক্সবাজার পৌরসভা ৭নং ওয়ার্ডের সাকেনা খাতুন(৭৫) মৃত ফখর আলীর স্ত্রী। বৃদ্ধ মায়ের কাছে ঘটনার বিষয় জানতে চাইলে তিনি কান্নাস্বরে জানান, বিয়ের পর ২ ছেলে ও ১মেয়ের জন্ম হয়। কয়েক বছর আগে মারা যায় তার স্বামী। স্বামীর শেষ সম্পত্তিটুকু আগলে অনেক কষ্টে বড় ছেলে জামাল উদ্দিন , মেজো ছেলে সাহাব উদ্দিন ও মেয়ে কে লালন-পালন করেন তিনি। বড় হয়ে ৩ ছেলে মেয়েকে বিয়েও দিয়েছেন তিনি। কিন্তু বিয়ের পর বড় ছেলে জামাল তার ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিতে রাজি হয়নি। মেজ ছেলে সাজাব উদ্দিন জানান আমি ও আমার মার খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। মা ও আমাকে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে নিজ বাড়ী থেকে বের করে দিয়েছে বড় ভাই জামাল সওদাগর। বর্তমান পৈত্রিক সম্পত্তিতে নিজে সেমি পাকা ঘর নির্মান করেছি। কিন্তু জামাল সওদাগর স্থানীয় সন্ত্রাসীদের ভয় দেখিয়ে আমাকে ও আমার মাকে বাড়ীতে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। জসিম উদ্দিন আরো জানান এমতাবস্থায় আইনের আশ্রয় ছাড়া কোন উপায় না দেখে সদর,থানায় অভিযোগ করেছি। ওসি সাহেব একজন কর্মকর্তা কে দায়িত্ব দিয়েছেন তদন্তপূর্বক সঠিক বিচার পাবো বলে আশা করছি। এদিকে বৃদ্ধা মার বড় ছেলে জামাল উদ্দিন সওদাগরের সাথে যোগাযোগ করা হলে Coxbazar24 কে জানান তারা জন্ম সুত্রে বরিশাল বিভাগের ভোলা জেলার বাসিন্দা। ১৯৭৮ সালে আমার বাবা স্বপরিবারে কক্সবাজারের দক্ষিন পাহাড়তলী ৭ নং ওয়ার্ডের জিয়া নগরের অস্থায়ী বাসিন্দা হিসাবে বসবাসকরে আসচ্ছি। আমার মা এবং ভাই আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তা সঠিক নয় বলে অস্বীকার করেন জামাল সওদাগর।